মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়ের সঙ্গে ফোনে রামনাথ কোবিন, শেখ হাসিনা এবং লোটে শেরিং!


কলকাতা: কয়েক দিন আগেই বাাংলার উপর দিয়ে বয়ে যায় এক বিধ্বংসী ঝড়। এই ঝড়ের নাম দেওয়া হয় আম পান। আমপান নামক এই ঝড়় বাংলা সহ উড়িষ্যার বেশ কিছুু অঞ্চলে মারাত্ম ক্ষতি করে। মূলত বাংলাতে হয়েছে সবথেকে বেশি ক্ষতি। বাংলার প্রায় ১২ জন লোকের প্রাণহানি হয়েছে। এছাড়াও বহুুু কাঁচা ঘর ঝড়ে উড়ে গিয়েছে।

করোনার এই কঠিন পরিস্থিতিতে বাংলার মধ্যে এক নতুন বিপদ। দীর্ঘ দুই মাস ধরে লকডাউন চলার কারণে সাধারণ খেটে খাওয়া মানুষদের রোজগারও হয়নি। তার মধ্যে আবার এই ঝড় গোদের ওপর বিষফোঁড়া। ভুল করেছ না হলে এবং তাদের অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়েছে প্রচুর। তাদের না খেয়ে দিন কাটানোর মত অবস্থা হয়েছে এখন।

শুক্রবার বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে ফোন করে আশ্বস্ত করেন এবং বিপদে পাশে থাকার কথা বলেন। শেখ হাসিনা বলেছেন তিনি বাংলা তথা ভারতের সমস্ত রকম বিপদের শুভাকাঙ্ক্ষী এবং ভারতের পাশে থাকবেন। এছাড়া বাংলায় কোথায় কি রকম ক্ষতি হয়েছে সেই বিষয়ে খোঁজখবর নিয়েছেন তিনি, মুখ্যমন্ত্রী কে সান্ত্বনা দিয়েছেন।

রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন এই দিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কে ফোন করে রাজ্যের কোথায় কেমন ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে সেই খবর নিয়েছেন। সমস্ত রকম বিপদ বাংলার পাশে থাকার আশ্বাস দিয়েছেন রামনাথ কবিন। এই কঠিন পরিস্থিতিতে ভেঙে না পরে রাজ্যের মানুষের কঠিন পরিস্থিতি খতিয়ে দেখতে বলেছেন তিনি। মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় টুইট করে রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন কে ধন্যবাদ জানিয়েছেন।

ভুটানের প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিংও মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে ফোন করেছিলেন এবং এই মর্মান্তিক ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। ভুটানের তরফ থেকে বাংলাকে এক কোটি টাকা দেওয়ার কথা জানিয়েছেন তিনি। প্রধানমন্ত্রী লোটে শেরিং মুখ্যমন্ত্রীকে জানিয়েছেন বাংলা তথা ভারতের সমস্ত রকম আপদে-বিপদে ভুটান সব সময় সাথে ছিল এবং ভবিষ্যতেও থাকবে।

এছাড়া ভারতের বিভিন্ন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী দাও বাংলা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ফোনে কথা হয়েছিল এবং ঝড়ের এই মর্মান্তিক ঘটনার জন্য দুঃখ প্রকাশ করেছেন। কেরালার মুখ্যমন্ত্রী, উড়িষ্যার মুখ্যমন্ত্রী, এবং অন্য রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীরাও মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ফোনে কথা বলেছেন এবং রাজ্যের এই বিপদে পাশে থাকার কথা জানিয়েছেন। এই কঠিন বিপদে রাজ্যের সাধারণ মানুষদের থাকা-খাওয়া ব্যবস্থার দিকে কেন্দ্রীয় সরকারকে নজর দিতে বলেছেন তারা।

শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী ও বাংলায় এসেছিলেন এবং মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বন্যা অধ্যুষিত এলাকা গুলি ঘুরে দেখেছেন। প্রধানমন্ত্রীর নরেন্দ্র মোদি বাংলার এই কঠিন বিপদের সময়ে ক্ষতিপূরণ হিসেবে এক হাজার কোটি টাকার অনুদান রাজ্যকে দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন। প্রতিটি মৃত্যু ব্যক্তির পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে অনুদান দেওয়া হবে বলে তিনি ঘোষণা করেছেন এছাড়া আহতদের পরিবারে ৫০ হাজার টাকা করে দেয়া হবে।

যদিও রাজ্যের তরফ থেকে বলা হয়েছে এই অনুদান খুবই সামান্য। এই অনুদান দিয়ে কিছুই হবেনা নুন আনতে পান্তা ফুরাবে। রাজ্যের তরফ থেকে এক লক্ষ কোটি টাকা দাবি করা হয়েছে। যদিও এই কঠিন পরিস্থিতিতে এত বড় মূল্যের টাকা রাজ্যকে কেন্দ্র দেবে কিনা এই নিয়ে সন্দেহ রয়েছে।কারন করোনা মহামারীর জন্যে প্রায় দুই মাস ধরে দেশে লকডাউন রয়েছে এবং দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা খুবই বেহাল।

Post a Comment

0 Comments