Amazon

মার্কিন যক্তরাষ্ট্র থেকে ডুবোজাহাজ ধ্বংসকারী হেলিকপ্টার আনছে ভারত!

নমুনা চিত্র

ওয়েব ডেস্ক: ভারত দিনে দিনে বিশ্বের অন্যতম শক্তিধর দেশগুলির মধ্যে একটি হয়ে উঠছে। আমেরিকা জাপান সহ অন্যান্য শক্তিশালী দেশগুলোর সঙ্গে ভারতের কূটনৈতিক সম্পর্ক স্থাপিত হয়েছে। কিছুদিন আগেই ভারত ফ্রান্স থেকে রাফাল নামক যুদ্ধবিমান জানিয়েছে ভারতীয় বায়ুসেনার জন্য। এবার ভারতীয় নৌসেনার জন্য মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র থেকে এমএইচ ৬০আর হেলিকপ্টার আনতে চলেছে ভারত।

সমুদ্রের গভীরতর স্থানে কোনো শত্রু সাবমেরিন লুকিয়ে থাকলেও তাকে সনাক্ত করতে পারবে এই বিশেষ হেলিকপ্টার। শুধুমাত্র সনাক্ত করাই নয় সনাক্ত করে শত্রু সাবমেরিনকে ধ্বংস করে দিতে পারে এই এমএইচ ৬০আর। এই হেলিকপ্টার গুলি শুধুমাত্র আত্মরক্ষার জন্যই নয় শত্রু দেশের এলাকার ভিতরেও নৌ সেনার হয়ে আক্রমণ করতে পারবে।

২০১৯ সালে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সঙ্গে এই হেলিকপ্টার এর জন্য চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছিল। তখন মার্কিন সংবাদ মাধ্যমে জানা যায় ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে ২৬০ কোটি ডলারের চুক্তি হয়েছে এই হেলিকপ্টার কে নিয়ে। তখন ইউ জানানো হয়েছে ওই হেলিকপ্টার গুলিতে ক্ষেপণাস্ত্র উন্নত মানের সেন্সর এবং কমিউনিকেশন প্রযুক্তি থাকবে।

কিন্তু অবশেষে ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে এই হেলিকপ্টার কে কেন্দ্র করে মাত্র ৯০ কোটি ৫০ লক্ষ ডলারের মধ্যে চুক্তি স্বাক্ষর করা হয়েছে। এই চুক্তির মধ্যে মোট ২৪ টি হেলিকপ্টার কিনতে চলেছে ভারত। সবকটি হেলিকপ্টার ভারতীয় নৌ সেনার জন্য কেনা হচ্ছে বলে জানা গিয়েছে। এখনও পর্যন্ত ভারতীয় নৌ সেনা ১৯৭১ সালে কেনা 'সি কিং' হেলিকপ্টার গুলি ব্যাবহার করে চলেছে।

এই হেলিকপ্টার ভারতে আসার পরে ভারত মহাসাগরে ভারতের জোর অনেকটাই মজবুত হবে বলে আশা করা হচ্ছে। ভারত মহাসাগরে চীন এবং পাকিস্তানের বিরুদ্ধে লড়াই করতে এই বিশেষ আধুনিক প্রযুক্তির হেলিকপ্টার গুলি যথেষ্ট শক্তিশালী যোদ্ধা হিসাবে কাজ করবে। এছাড়া ভারত মহাসাগরের ভারতের এলাকায় চীন এবং পাকিস্থানের অবাধ অনুপ্রবেশের উপর কড়া নজর রাখা সম্ভব হবে।

আগামী বছরেই এই যুদ্ধ হেলিকপ্টার গুলি ভারতে আসবে বলে জানা গিয়েছে। ভারতে এই হেলিকপ্টার গুলি পৌঁছানোর আগেই মার্কিন সেনার কাছ থেকে ভারতীয় নৌ সেনা হেলিকপ্টার গুলি চালানোর প্রশিক্ষণ নেবে। মার্কিন সেনারাই ভারতের হতে এই আধুনিক হেলিকপ্টার গুলি পৌঁছে দেবে।

ভারত এবং মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মধ্যে বন্ধুত্ব দিন দিন খুব দৃঢ় হচ্ছে। প্রতিবেশী দেশ পাকিস্থান এবং চীন এই বিষয়কে খুব ভালো চোখে দেখছে না। ইতিমধ্যে করোনা ভাইরাস কে কেন্দ্র করেও চীন বিশ্বের কাছে চক্ষুশূল হয়ে দাঁড়িয়েছে। আমেরিকা এবং চীনের মধ্যে বেশ সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। পরবর্তীকালে এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই দেশের মধ্যে যুদ্ধের সম্ভবনা আছে বলেও অনেক বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন

যদিও ভারত এই বিষয়ে আমেরিকা বা চীন কোনো দেশের পক্ষপাতী করে নি। ভারত সমস্ত বিশ্বকে এক হয়ে করোনা ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াই করার উপদেশ দিয়েছে। কিন্তুু প্রতিবেশী দেশ পাকিস্তান বিশ্বের এই সংকটময় পরিস্থতিতেও লাইন অফ কন্ট্রোল এ বার বার সিস ফায়ার নীতির উলঙ্ঘন করেছে এবং ভারতে আতঙ্কবাদী অনুপ্রবেশ চালিয়েই যাচ্ছে। ভারতীয় সেনাও তার যোগ্য জবাব দিয়েছে। এই লকডাউনের সময়কালে প্রায় ৩৫ থেকে ৪০ জন আতঙ্কবাদী কাশ্মীরে ভারতীয় সেনার গুলিতে মারা গিয়েছে।

Post a Comment

0 Comments