Amazon

অবশেষে প্রকাশ্যে আসলেন কিম জং উন !


ওয়েব ডেস্ক: করোনা মহামারীর এই ভয়ংকর পরিস্থিতিতে উত্তর কুরিয়ার তানাসাহ কিম কে নিয়ে অনেক গুজব ছড়ায়। অনেকে মনে করেন যে কিম করোনা রোগে আক্রান্ত, আবার অনেকে বলেন তিনি মিসাইল টেস্ট এ মারা গেছেন। অনেকে আবার বলেন যে তিনি করোনা থেকে বাঁচতে লুকিয়ে আছেন। এটা প্রথম বার নয় এর আগেও বহু বার কিম এর এই রকম আচরণ লক্ষ্য করা যায়।

অবশেষে সমস্ত ভুলভ্রান্তি দুর করে মে দিবসের অনুষ্ঠানে উপস্থিত হন উত্তর কুরিয়ার তানাশাহ। এই দিন সংবাদমাধ্যমে কিমের ছবিও দেখা যায়। সংবাদমাধ্যমের একাংশ দাবি করেছিল যে কিম আর নেই, তিনি পরলোক গমন করছেন। তার মৃত্যুর খবর প্রকাশ পাওয়ার পরের দিনই কিম এর পরিবারের জন্য সংরক্ষিত স্টেশন এ তার প্রিয় ট্রেনটিকে দাড়িয়ে থাকতে দেখা যায়, যা সন্দেহ কে আরো প্রবল করে তোলে।

কিম এই দিন একটি সার কোম্পানির উদ্বোধন করেন। তাকে তামাকের ধোয়া ছাড়তে ছাড়তে ক্যামেরার সামনে পোজ দিতেও দেখা যায়। ডোনাল্ড ট্রাম্প বলেন, ' আমার এখন কিছু না বলেই শ্রেও, সময় মতো ঠিক বলব। ' ভবিষ্যতে আমেরিকা আর নর্থ কুরিয়ার মধ্যে সম্পর্ক আরো খারাপ হাওয়ার ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে।

১৫ এপ্রিল কিমকে তার দাদুর জন্মদিনেও দেখা যায় নি। শেষে ২০ দিন পর কিমকে জনসমক্ষে দেখা যায়।  সাউথ কুরিয়ার প্রেসিডেন্টের উপদেষ্টা সংবাদমাধ্যম কে জানান কিম ভালো আছে সুস্থ আছে। বলা বাহুল্য যে, নর্থ ও সাউথ কুরিয়ার মধ্যে শত্রুতা বহুকালের। দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের সময় থেকে তারা একে অপরের শত্রু হিসাবেই দুনিয়ার কাছে পরিচিত।

অনেকে বলছেন তিনি এই কয়দিন গিয়েছিলেন কারণ তিনি করোনাভাইরাস কে ভয় পেয়েছেন। আবার অনেকের মধ্যেই তিনি এই কয়েকদিন লুকিয়ে মিসাইল টেস্ট করেছেন। অনেকে আবার এই ধরনের আশঙ্কা করেছিলেন যে তিনি হয়তো করণে আক্রান্ত হয়ে মারা গিয়েছেন।

কিন্তু অবশেষে তিনি প্রায় কুড়ি পঁচিশ দিন পর জনসমক্ষে আসেন এবং এই কোম্পানির উদ্বোধনে আসেন। সেখান থেকে ধূমপান করা অবস্থায় ক্যামেরার সামনে পোজ দিতে দেখা যায় হাসি ঠাট্টা করা অবস্থায় দেখা যায়।

যাইহোক উত্তর কোরিয়া সারা বিশ্বের কাছে সবসময় এক রহস্যে আবৃত ছিল। এখনো পর্যন্ত উত্তর কোরিয়ার এমন অনেক নিয়ম আছে যেগুলো খুবই অদ্ভুত কিন্তু সেই দেশের মানুষেরা এই নিয়মগুলোকে কঠোরভাবে মেনে চলে। তারা প্রশাসনের প্রতি অঙ্গীকারবদ্ধ তাই হয়তো সৃষ্টি এত উন্নত এবং সমস্ত বিশ্ব সেই দেশটিকে নিয়ে এত চর্চা করে।

Post a Comment

0 Comments