Amazon

কাশ্মীরে ভারতীয় সেনার গুলিতে নিহত হিজবুল নায়ক রিয়াজ নাইকু!


শ্রীনগর: বর্তমানে ভারত সহ সমস্ত বিশ্বে করোনা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে। সমস্ত বিশ্ব এই ভাইরাস এর কারণে অতিষ্ট। কিন্তুু এই বিপদজ্জনক সময়েও কাশ্মীরে আতঙ্কবাদীরা লাগাতার ভারতের সেনার উপর হামলা করে চলেছে। ভারতীয় সেনাও তার যোগ্য জবাব দিয়েছে। লকডাউন এর মধ্যে প্রায় ৩৫ - ৫০ জন আতঙ্কবাদী ভারতীয় সেনার গুলিতে নিহত হয়েছে।

কিন্তুু কিছুদিন আগেই আতঙ্কবাদীরা ৪ ভারতীয় সেনাকে হত্যা করে। এই লকডাউনের মধ্যেও দেশের সমস্ত মানুষ ক্ষোভে ভেঙে পড়েছেন এই শহীদ জওয়ানদের মৃত্যুর খবর পেয়ে। কিন্তুু ১১ দিন কাটতে না কাটতেই ভারতীয় সেনার বীর জাওয়ানরা কাশ্মীরে হিজবুল প্রধান রিয়াজ নাইকু কে এনকাউন্টারে মেরে ফেলে।

হিজবুল কমান্ডার রিয়াজ নাইকু বেগপুরার বাসিন্দা ছিল। বেগপুরাতেই ছোটবেলার পড়াশুনা করে সে। তার পর পূলওয়ামা কলেজ থেকে স্নাতক হয়। সে কিছুদিন অংকের শিক্ষকতা করে। প্রযুক্তির বিষয়ে তার যথেষ্ট পারদর্শিতা ছিল। বিভিন্ন ধরনের সোশ্যাল মিডিয়া সাইটে সে ইসলাম প্রচার করে এবং তরুণ সমাজকে ব্রেইন ওয়াশ এর মাধ্যমে সন্ত্রাসের পথে নিয়ে আসে। প্রধানত এটাই ছিল তার প্রধান কাজ।

প্রায় ২০১২ তে রিয়াজ হিজবুল আতঙ্কবাদী সংগঠনে যোগ দেয়। সেখানে বেশ কিছুদিনের মধ্যেই নামকরা হয়ে ওঠে। ২০১৬ - ২০১৭ সালে কাশ্মীরের হিজবুল প্রধান ভারতীয় সেনার সঙ্গে সংঘর্ষে নিহত হলে রিয়াজ নাইকু কে কাশ্মীরের হিজবুল প্রধান বানানো হয়। সে কাশ্মীরে নাশকতা চালিয়ে যায়।

কাশ্মীর পুলিশের সঙ্গে তার বহুবার সংঘাত হয়। রিয়াজ বহু পুলিশকে তাদের পরিবার সহ অপহরণ করে। তাদের মধ্যে অনেকেরই নৃশংস ভাবে হত্যা করে দেওয়া হয়। তাছাড়া সে বহু পুলিশকে ধমকির মাধ্যমে ইস্তফা দিতে বাধ্য করেছে বলে জানা যায়।

আতঙ্কবাদীরা মারা গেলে তাদের জন্য ' গান সেলুট ' এর প্রচলন করে রিয়াজ। কাশ্মীরের ভোটের সময় প্রার্থীদের চোখে অ্যাসিড ছুড়ে মারে। ২০১৮ সালে রিয়াজ ভয়ঙ্কর এক হত্যার ভিডিও সোশ্যাল মিডিয়াতে প্রকাশ করে। সেই দৃশ্য দেখে সবারই শরীর শিউরে উঠবেই।

ভারতীয় সেনার কাছে খবর ছিল দক্ষিণ কাশ্মীরে বেগপুরায় বাড়ির লোকেদের সাথে দেখা করতে আসছে রিয়াজ নাইকু। ভারতীয় সেনার স্পেশাল অপারেশন গ্রুপ পুলওয়ামার বেশ কয়েকটি গ্রামকে ঘিরে ফেলে এবং সকাল ৯ টার থেকে সংঘর্ষ শুরু হয়। অবশেষে রিয়াজ নাইকু সহ আরো একজন কে এনকাউন্টারে মেরে ফেলে ভারতীয় সেনা জওয়ানরা। অনেকে মনে করছেন রিয়াজ এর মৃত্যুর পরে কাশ্মীরে সমস্যা বাড়তে পরে তাই উপত্যকায় যথেষ্ট পরিমাণে সেনা নিয়োগ বাড়াতে হবে।

Post a Comment

0 Comments